You Are Here: Home » সংগঠন সংবাদ » আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের আলোচনায় নেতৃবৃন্দ একুশের চেতনায় নব্য নাস্তিক নবীর দুশমন ইসলাম ও দেশবিরোধী সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়তে হবে–মহাসচিব, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের আলোচনায় নেতৃবৃন্দ একুশের চেতনায় নব্য নাস্তিক নবীর দুশমন ইসলাম ও দেশবিরোধী সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়তে হবে–মহাসচিব, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের আলোচনায় নেতৃবৃন্দ একুশের চেতনায় নব্য নাস্তিক নবীর দুশমন ইসলাম ও  দেশবিরোধী সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়তে হবে–মহাসচিব, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেছেন, ২১ ফেব্রুয়ারী আমাদের জাতীয় জীবনে এক গৌরবময় ও তাৎপর্যপূণ দিন। দেশ স্বাধীন হলেও আধিপত্যবাদী শক্তির আগ্রাসন বন্ধ হয়নি। একুশের চেতনায় নব্য নাস্তিক-মুরতাদ ও নবীর দুশমনসহ সকল ষড়যন্ত্রকারী, আন্তর্জাতিক আধিপত্য শক্তিকে রুখে দিতে হবে। অন্যায়- অসত্য ও দেশবিরোধী, ইসলামবিরোধী শক্তির ক্রীড়নকদের বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। ভাষা আল্লাহর শ্রেষ্ঠ দান। মুখের ভাষাকে যারা কেড়ে নিতে চেয়েছিল তারা আসলেই মানবতার শত্রু। এই মানবতার শত্রুদের যেভাবে বাংলার দামাল ছেলেরা পরাজিত করে বাংলাভাষা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তেমনিভাবে মহানবীর দুশমন নব্য নাস্তিক ব্লগার প্রতিহত করে ইসলামী শাসন প্রতিষ্ঠার জন্যও খোদাদ্রোহী শক্তির বিরুদ্ধে সর্বাত্মক সংগ্রামে অবতীর্ণ হতে হবে।

আজ মঙ্গলবার বিকালে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরীর উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ তিনি উপরোক্ত কথা বলেন। পুরানা পল্টনস্থ কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর সভাপতি অধ্যাপক মাওলানা এটিএম হেমায়েত উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, মাওলানা আতাউর রহমান আরেফী, ঢাকা মহানগর সহ-সভাপতি সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আলতাফ হোসেন, মাওলানা এবিএম জাকারিয়া, সেক্রেটারী মোঃ আবু সাঈদ সিদ্দিকী, জয়েন্ট সেক্রেটারী মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক ফজলুল হক মৃধা, নুরুজ্জামান সরকার, মাওলানা বাছির উদ্দিন মাহমুদ, মাওলানা নজরুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাসেম প্রমুখ।
নেতৃবৃন্দ বলেন, আজ ভাবতে অবাক লাগে মুসলমানের দেশে যুদ্ধাপরাধীর বিচার যা চলমান তা সত্ত্বেও তরুণ প্রজন্মের নামে ইসলাম ধ্বংসের তৎপরতা আমাদেরকে ভাবিয়ে তুলেছে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, বাংলাভাষার জন্য জীবন ও রক্ত দেয়া হলেও আজ বাংলার কদর নেই। আমাদের দেশের শাসক শ্রেণীর দূর্বলতার কারণে ভারতীয় সাংস্কৃতিক আগ্রাসনের শিকার দেশ। আমাদেরকে ভারতীয় সাংস্কৃতিক আগ্রাসনে জর্জরিত করেছে। নিজস্ব সংস্কৃতির চর্চার পরিবর্তে ভিনদেশী সংস্কৃতির আমদানী করছি। এসবের ফলে নিজস্ব ভাষা ও স্বকীয়তা ও ঐহিত্য হারিয়ে মূল্যবোধের চরম অবক্ষয়ের দিকে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। ভাষা আন্দোলন শিক্ষা দেয় সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংঘবদ্ধভাবে লড়াই করার। বাংলাভাষাকে রাষ্ট্রীয়ভাবে প্রতিষ্ঠার জন্য জীবন উৎসর্গ করেছে সেই সালাম, বরকত, রফিক, জব্বারসহ আরো যারা জীবন দিয়েছে তাদের পরিবারকে যথাযথ মর্যাদা দেয়া হয়নি। ৫২-এর ভাষা আন্দোলন থেকেই স্বাধীনতা সংগ্রামের সূচনা হয়। আজ যারা স্বাধীনতার চেতনার নাম ধর্মনিরপেক্ষ বলে তারা আসলেই বোকার স্বর্গে বসবাস করে। কেননা স্বাধীনতার চেতনায় ধর্মনিরপেক্ষ মতবাদের কথা বলা হয়নি।

নগর সভাপতি অধ্যাপক মাওলানা হেমায়েত উদ্দিন বলেন, আমাদের ইতিহাস ঐতিহ্য ও মূল্যবোধকে হারিয়ে আমাদের নতুন প্রজন্মকে জাতিসত্ত্বা সঙ্কটের দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। যারা স্বাধীনতার ও ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস বিকৃত করে তাদের কবল থেকে প্রকৃত ইতিহাসকে উদ্ধার করতে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন, বিজাতীয় সাংস্কৃতিক আগ্রাসন থেকে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম রক্ষার জন্য ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। নেতৃবৃন্দ বলেন, বিশ্বের ১৮৮টি দেশে মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা করা হলেও জাতিসংঘ এখনও বাংলাভাষাকে স্বীকৃতি দেয়নি যা আসলেই দু:খজনক। বিদেশী ভাষার পরিবর্তে সরকারী অফিস আদালতে বাংলা ভাষার প্রচলনের জন্য সরকারের নিকট দাবি জানান।

Comments

comments

About The Author

Number of Entries : 673

Leave a Comment

কপিরাইট © ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ২০১১ সকল স্বত্ব সংরক্ষিত

Scroll to top