You Are Here: Home » featured » ৫ ফেব্রুয়ারি ঐতিহাসিক শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন -ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

৫ ফেব্রুয়ারি ঐতিহাসিক শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন -ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

৫ ফেব্রুয়ারি ঐতিহাসিক শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন -ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

দেশের চলমান রাজনৈতিক সঙ্কট নিরসনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম (পীর সাহেব চরমোনাই) ঘোষিত ৫ ফেব্রুয়ারির ঐতিহাসিক শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন সফলে ৪ সংগঠনের যৌথ প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ উপলক্ষে মঙ্গলবার (২৭ জানুয়ারি) বিকাল ৩টায় পুরানা পল্টনস্থ আইএবি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত যৌথ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সংগঠনের মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ। সংগঠনের ঢাকা মহানগর সভাপতি অধ্যাপক এটিএম হেমায়েত উদ্দিন-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। অন্যান্য সংগঠনগুলো হলো ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন ঢাকা মহানগর পশ্চিম, পূর্ব, দক্ষিণ ও উত্তর এবং দ্বীনি সংগঠন ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ ছাড়াও ইসলামী আন্দোলন ও অঙ্গসংগঠনের ৪৯ থানা নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

যৌথ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, প্রিন্সিপাল মাওলানা আতাউর রহমান আরেফী, আলহাজ্ব আলতাফ হোসেন ও মাওলানা এবিএম জাকারিয়া, মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, ঢাকা জেলা সভাপতি আলহাজ্ব সৈয়দ আলী মোস্তফা, সেক্রেটারি আলহাজ্ব শাহাদাত হোসাইন, শ্রমিক আন্দোলনের সভাপতি মাওলানা ফখরুল ইসলাম, ছাত্র আন্দোলনের পশ্চিম সভাপতি মুহাম্মদ শরীফুল ইসলাম, পূর্ব সভাপতি কাওছার বিন সুলতান, দক্ষিণ সভাপতি আবদুল আহাদ, উত্তর সভাপতি মোহাম্মদ ইউসুফ, অধ্যাপক ফজলুল হক মৃধা, মু. মোশাররফ হোসেন, এইচ এম সাইফুল ইসলাম, এইচ এম ছিদ্দিকুর রহমান, মাওলানা নজরুল ইসলাম, আলহাজ্ব আবদুর রহমান,হাফেজ মাওলানা নাযীর আহমদ শিবলী, আলহাজ্ব আবদুল আউয়াল, মাওলানা বাছির উদ্দিন মাহমুদ, আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন, আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন, আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেন, ৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য ঐতিহাসিক মানববন্ধন কর্মসূচি সফল করে প্রমাণ করে দিতে হবে। তিনি বলেন, চলমান উত্তপ্ত রাজনীতির করালগ্রাস থেকে মুক্তি পেতে হলে হযরত সাহাবায়ে কেরামগণের মতো সর্বক্ষেত্রে ত্যাগ ও কুরবানীর নজরানা পেশ করতে হবে। রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তন ও আদর্শিত রাজনৈতিক পরিবেশ তৈরি করা ছাড়া নোংরা রাজনীতি করালগ্রাস থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে না। এজন্য ইসলামী আন্দোলন ব্যতিক্রম প্লাটফরম তৈরি করে দেশবাসীকে মুক্তির পথে নিয়ে আসতে হবে।

অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন বলেন, বড় দু’টি দল দেশকে অনিবার্য ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। জাতিকে মুক্তির জন্য এবং চলমান সঙ্কট নিরসন করতে হলে সকল দলের নিকট গ্রহণযোগ্য একটি নির্বাচনই সব সঙ্কট থেকে জাতিকে পরিত্রাণ দিতে পারে। তিনি বলেন, রাজনৈতিক পরিস্থিতি ক্রমেই উত্তপ্ত হচ্ছে। দেশের সাধারণ মানুষের মাঝে চরম উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। সকল উত্তপ্ত পরিস্থিতির মাঝেও ইসলামী আন্দোলন তার লক্ষ্যপানে এগিয়ে চলছে দুর্বারগতিতে।
সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক এটিএম হেমায়েত উদ্দিন দেশের জাতীয় সঙ্কটের জন্য ৫ জানুয়ারির ভোটারবিহীন নির্বাচনকে দায়ী করে বলেন, চলমান দেশের সঙ্কট নিরসন করতে হলে সকল দলের নিকট গ্রহণযোগ্য একটি নির্বাচনই সব সঙ্কট থেকে জাতিকে পরিত্রাণ দিতে পারে।

Comments

comments

About The Author

কপিরাইট © ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ২০১১ সকল স্বত্ব সংরক্ষিত

Scroll to top